ঢাকা ১২:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষঃ
মৌলভীবাজারে আন্তর্জাতিক গনতন্ত্র ও মানবাধিকার সংগঠনে মনোনীত যারা জাপানের একটি জনহীন রেলওয়ে স্টেশন শুধুমাত্র এক ছাত্রীর জন্য এখনও চালু রয়েছে মুন্সীগঞ্জে পদ্মার ভাঙনে ঝুঁকিতে পুরাতন ঐতিহ্যবাহী দিঘিরপাড় বাজার শ্রীমঙ্গলে জমি সংক্রান্ত বিরোধে আইনজীবী নিহত,আহত-২ নকলায় জঙ্গিবাদ ও মাদকাসক্ত প্রতিরোধে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান কুলাউড়ায় আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর দেওয়ার নামে ভিক্ষুকের অর্থ আত্মসাৎ মাথিউড়া চা শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি পরিশোধের দাবি: চা শ্রমিক ফেডারেশন মৌলভীবাজারে বন্যার পানি না নামায়, ২৩৫ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান বন্ধ  সোনারগাঁয়ে ঔষধের দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি: ৭০ হাজার টাকা নিয়ে চম্পট নকলার ইউএনও শুদ্ধাচার পুরস্কার পাওয়ায় যুবফোরামের সম্মাননা স্মারক প্রদান

টংঙ্গীবাড়ীতে সরকারী রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণ-গাছ কর্তন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:২০:২১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জুলাই ২০২৪ ৬৮ বার পড়া হয়েছে
মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ
মুন্সীগঞ্জের টংঙ্গীবাড়ী উপজেলার সোনারং টংঙ্গীবাড়ী ইউনিয়নের সোনারং গ্রামের মৃত মোহাব্বত শেখের বাড়ির পাশে সরকারী হালট দিয়ে জনসাধারনের চলাচলের রাস্তা অতিবাহিত হয়েছে। আর এই রাস্তার ম্যাপ অনুয়ায়ী একটি মাটির কাচাঁ রাস্তা নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেয় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান।এর আগে জন সাধারনের চলাচলের কোন রাস্তা না থাকায় সকলে মিলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন করিলে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবেদনটি আমলে নিয়ে সরকারী হালট অনুসন্ধানের জন্য উপজেলা ভমি কর্মকর্তা এ্যাসিলেন্ডকে সরেজমিনে যাওয়ার নির্দেশ দিলে উপজেলা ভুমি কর্মকর্তা এ্যাসিলেন্ড সরকারী সার্ভেয়ারকে সঙ্গে নিয়ে মালিকানা সম্পত্তির সাথে থাকা সরকারী হালট ম্যাপ অনুয়ায়ী আলাদা করে সীমানা নির্ধারন করে দেন।সরকারী হালটের মধ্যে থাকা ১৩ টি গাছ টেন্ডারও করা হয় ইতিপূর্বে।সরকারী জায়গায় থাকা ঘরবাড়ি অপসারন করা হয় তখন।আর এই হালটের মধ্য দিয়ে এলাকার জন সাধারনের চলাচলের জন্য একটি মাটির রাস্তা নির্মানের ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন লিটন মাঝি পরিকল্পনা হাতে নেয়।সরকারী হালটের উপর ক্ষমতার অপব্যবহার করে চৌ-চালা টিনের ঘর নির্মাণ করেন মোহাব্বত শেখের ছেলে আব্দুল বাছেদ শেখের নির্দেশে তার ছেলে আজিম শেখ ও আরাফাত শেখ গংরা।ইদানিং সরকারী গাছ বিক্রি করে এবং কর্তন করেন।পরে গাছ নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসি বাধাঁ দেয়।এলাকাবাসি উপজেলা প্রশাসন ও সোনারং টংঙ্গীবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে অবগত করিয়ে গনমাধ্যম কর্মীদের জানায়।সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সোনারং মৌজার ১৭৩ নং দাগে সরকারী হালটের মধ্যে থাকা একটি রেন্টি গাছের কর্তন করা কয়েকটি খন্ড খন্ড অংশ পড়ে আছে যা এলাকাবাসি আবদ্ধ দিয়ে রেখেছে।সরকারী সীমানার পিলারের বাহিরে হালটের অন্তরভুক্ত রাস্তা দখল করে একটি চৌ-চালা টিনের ঘর নির্মান করা আছে।এব্যাপারে আজিম শেখ ও আরাফাত শেখ বলেন,আমরা আমাদের নিজস্ব সম্পত্তির উপর ঘর উঠিয়েছি আর আমাদের জায়গার উপর থাকা গাছ কেটেছি।সরকারী জায়গায় কোন ঘর উঠাইনি।
৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার বলেন,এ্যাসিলেন্ডসহ সরেজমিনে এসে সার্ভেয়ার দ্বারা সীমানা নির্ধারন করে হালট অনুযায়ী খুঁটি বসানো হয়েছে।তারা সেই সীমানার তোয়াক্কা না করে ক্ষমতার প্রভাব দেখিয়ে রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণ করেছে।সোনারং টংঙ্গীবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন লিটন মাঝির সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, বাছেদ শেখ গংদের জবর দখলের কারনে এলাকার জনসাধারনের চলাচলের রাস্তা নির্মান করতে পারছিনা।সরকারী হালটের জায়গা তারা দখল করে সেখানে ঘর নির্মাণ করে রেখেছে,উদ্দর্তন কতৃপক্ষ যদি দখল অবমুক্ত করে দেন তাহলে আমি হালট বরাবর রাস্তা নির্মাণ করে দিব।সরকারী গাছ কর্তন ও হালটের সম্পত্তি দখল করে ঘর নির্মাণের ব্যাপারে টংঙ্গীবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আসলাম হোসাইন বলেন,আমি এঘটনার সংবাদ পেয়ে উপজেলা বন কর্মকর্তাকে গাছ কর্তনের বিষয়টি সরেজমিনে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে দিয়েছি এবং উপজেলা ভুমি কর্মকর্তা এ্যাসিলেন্ডকে সরেজমিনে গিয়ে রাস্তা বন্ধ করে সরকারী হালট দখল করে ঘর নির্মাণকারীর বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করে দখলকৃত হালট অবমুক্ত করতে বলে দিয়েছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

টংঙ্গীবাড়ীতে সরকারী রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণ-গাছ কর্তন

আপডেট সময় : ০৭:২০:২১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জুলাই ২০২৪
মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ
মুন্সীগঞ্জের টংঙ্গীবাড়ী উপজেলার সোনারং টংঙ্গীবাড়ী ইউনিয়নের সোনারং গ্রামের মৃত মোহাব্বত শেখের বাড়ির পাশে সরকারী হালট দিয়ে জনসাধারনের চলাচলের রাস্তা অতিবাহিত হয়েছে। আর এই রাস্তার ম্যাপ অনুয়ায়ী একটি মাটির কাচাঁ রাস্তা নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেয় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান।এর আগে জন সাধারনের চলাচলের কোন রাস্তা না থাকায় সকলে মিলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন করিলে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবেদনটি আমলে নিয়ে সরকারী হালট অনুসন্ধানের জন্য উপজেলা ভমি কর্মকর্তা এ্যাসিলেন্ডকে সরেজমিনে যাওয়ার নির্দেশ দিলে উপজেলা ভুমি কর্মকর্তা এ্যাসিলেন্ড সরকারী সার্ভেয়ারকে সঙ্গে নিয়ে মালিকানা সম্পত্তির সাথে থাকা সরকারী হালট ম্যাপ অনুয়ায়ী আলাদা করে সীমানা নির্ধারন করে দেন।সরকারী হালটের মধ্যে থাকা ১৩ টি গাছ টেন্ডারও করা হয় ইতিপূর্বে।সরকারী জায়গায় থাকা ঘরবাড়ি অপসারন করা হয় তখন।আর এই হালটের মধ্য দিয়ে এলাকার জন সাধারনের চলাচলের জন্য একটি মাটির রাস্তা নির্মানের ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন লিটন মাঝি পরিকল্পনা হাতে নেয়।সরকারী হালটের উপর ক্ষমতার অপব্যবহার করে চৌ-চালা টিনের ঘর নির্মাণ করেন মোহাব্বত শেখের ছেলে আব্দুল বাছেদ শেখের নির্দেশে তার ছেলে আজিম শেখ ও আরাফাত শেখ গংরা।ইদানিং সরকারী গাছ বিক্রি করে এবং কর্তন করেন।পরে গাছ নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসি বাধাঁ দেয়।এলাকাবাসি উপজেলা প্রশাসন ও সোনারং টংঙ্গীবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে অবগত করিয়ে গনমাধ্যম কর্মীদের জানায়।সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সোনারং মৌজার ১৭৩ নং দাগে সরকারী হালটের মধ্যে থাকা একটি রেন্টি গাছের কর্তন করা কয়েকটি খন্ড খন্ড অংশ পড়ে আছে যা এলাকাবাসি আবদ্ধ দিয়ে রেখেছে।সরকারী সীমানার পিলারের বাহিরে হালটের অন্তরভুক্ত রাস্তা দখল করে একটি চৌ-চালা টিনের ঘর নির্মান করা আছে।এব্যাপারে আজিম শেখ ও আরাফাত শেখ বলেন,আমরা আমাদের নিজস্ব সম্পত্তির উপর ঘর উঠিয়েছি আর আমাদের জায়গার উপর থাকা গাছ কেটেছি।সরকারী জায়গায় কোন ঘর উঠাইনি।
৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার বলেন,এ্যাসিলেন্ডসহ সরেজমিনে এসে সার্ভেয়ার দ্বারা সীমানা নির্ধারন করে হালট অনুযায়ী খুঁটি বসানো হয়েছে।তারা সেই সীমানার তোয়াক্কা না করে ক্ষমতার প্রভাব দেখিয়ে রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণ করেছে।সোনারং টংঙ্গীবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন লিটন মাঝির সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, বাছেদ শেখ গংদের জবর দখলের কারনে এলাকার জনসাধারনের চলাচলের রাস্তা নির্মান করতে পারছিনা।সরকারী হালটের জায়গা তারা দখল করে সেখানে ঘর নির্মাণ করে রেখেছে,উদ্দর্তন কতৃপক্ষ যদি দখল অবমুক্ত করে দেন তাহলে আমি হালট বরাবর রাস্তা নির্মাণ করে দিব।সরকারী গাছ কর্তন ও হালটের সম্পত্তি দখল করে ঘর নির্মাণের ব্যাপারে টংঙ্গীবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আসলাম হোসাইন বলেন,আমি এঘটনার সংবাদ পেয়ে উপজেলা বন কর্মকর্তাকে গাছ কর্তনের বিষয়টি সরেজমিনে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে দিয়েছি এবং উপজেলা ভুমি কর্মকর্তা এ্যাসিলেন্ডকে সরেজমিনে গিয়ে রাস্তা বন্ধ করে সরকারী হালট দখল করে ঘর নির্মাণকারীর বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করে দখলকৃত হালট অবমুক্ত করতে বলে দিয়েছি।