ঢাকা ১০:০৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে চাদাবাজি, গ্রেফতার-২

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:১৮:৫৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪ ৭৩ বার পড়া হয়েছে

 

এমপি পুত্রের সাথে সখ্য হলেই, ক্ষমতার দাপটে নাম ভাঙিয়ে বনে যান অর্থলোভী চাঁদাবাজ.!

 

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।

 

নারায়ণগঞ্জ-৫, আসনের চারবারের নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নাসিম ওসমানের সুযোগ্য পুত্র যুবসমাজের আইকন আলহাজ্ব আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে।

 

রোববার(২৬ মে) রাত ৯ টার দিকে হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের মোবাইল ব্যবসায়ী মো. বেলায়েত হোসেন হৃদয় (২৩) বাদী হয়ে ১০জনের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় একটি চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করেন। মামলায় হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের ৬ জনের নাম উল্লেখ্য সহ অজ্ঞাত আরো ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, এর আগে সকালে চাদাঁবাজির দায়ে দুই চাদাবাজকে গ্রেফতার করে পুলিশ ।খবর পেয়ে বাকীরা  সুকৌশলে পালিয়ে যায় ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন (১) মুরাদ হোসেন রুবেল (৪০) পিতা- আব্দুল কাদের, মাদারীপুর জেলার কালকিনী থানার ফাসিয়া তলার এলাকার বাসিন্দা।  (২) মো. নজরুল ইসলাম (৫০),পিতা-মৃত. বাচ্চু মিয়া, নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর থানাধীন (পুরাতন বন্দর) সালেহ পাগলার দরবার এলাকার বাসিন্দা।

পলাতক আসামিরা হলেন,(১)সঞ্জয় (৪২) (২)অভি(৩৫),(৩)জাকির হোসেন (৪০) এবং (৪) মো: রাজু (৪২) ।

মামলার এজাহারে উল্লেখ্য যে, নারায়নগঞ্জের মডেল থানাধীন এস এম মালেহ রোড়স্থ হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের  প্রতি দোকান থেকে আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে ২৫ হাজার টাকা করে চাদাঁ দাবি করে ।তাদের কথা মত ব্যবসায়ীরা চাদাঁ দিতে অস্বীকৃতি জানালে বিভিন্ন সময় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এসে হুমকি-ধামকি প্রদান করে ।এই ভাবে হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের বিভিন্ন মোবাইলের দোকান থেকে ৫ লাখ ৪৫ হাজার টাকা আদায় করে হাতিয়ে নেয়।

কে এই মুরাদ?

জানা গেছে, আটককৃত চাঁদাবাজ মুরাদ ধুরন্দর প্রকৃতির লোক, হাবিব শপিং কমপ্লেক্সে মোবাইল এক্সেসরিজ এর দোকান ব্যাবসায়ী। মাত্র কয়েকদিন আগে মালিক দোকানদার ফেডারেল কমিটির নামে সাংসদ পুত্রের আস্থাভজন হতে দৌড় ঝাপ করে।সফলও হন,পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এমপি পুত্রের সাথে ছবি পোস্ট করেন,যা অনেকেই দেখেছে, পাশাপাশি এমপি পুত্রের ঘনিষ্ঠ সহচর নাসিরের পাশে বিভিন্ন প্রোগ্রামের ছবি ব্যাপকভাবে দেখা গেছে। এক পর্যায়ে নামে বেনামে কিছু ছবি পোস্ট করে বনে যান আজমেরী ওসমানের কর্মী। কিছুদিন যেতে না যেতেই শুরু করেন চাঁদাবাজি! তবে শেষ রক্ষা আর হলো না,চাঁদাবাজীর দায়ে অবশেষে রুবেল এখন শ্রীঘরে।

এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন জানান, সাবেক সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নাসিম ওসমানের পুত্র আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে হাবিব শপিং কমপ্লেক্সে চাদাঁবাজির অভিযোগে মুরাদ হোসেন রুবেল ও নজরুল ইসলাম নামে দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে ।বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যহত রয়েছে ।

এ ব্যাপারে সাংসদ পুত্র আজমেরী ওসমানের সাথে একাধিকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি, মোবাইল রিসিভ করেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে চাদাবাজি, গ্রেফতার-২

আপডেট সময় : ০৮:১৮:৫৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪

 

এমপি পুত্রের সাথে সখ্য হলেই, ক্ষমতার দাপটে নাম ভাঙিয়ে বনে যান অর্থলোভী চাঁদাবাজ.!

 

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।

 

নারায়ণগঞ্জ-৫, আসনের চারবারের নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নাসিম ওসমানের সুযোগ্য পুত্র যুবসমাজের আইকন আলহাজ্ব আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে।

 

রোববার(২৬ মে) রাত ৯ টার দিকে হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের মোবাইল ব্যবসায়ী মো. বেলায়েত হোসেন হৃদয় (২৩) বাদী হয়ে ১০জনের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় একটি চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করেন। মামলায় হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের ৬ জনের নাম উল্লেখ্য সহ অজ্ঞাত আরো ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, এর আগে সকালে চাদাঁবাজির দায়ে দুই চাদাবাজকে গ্রেফতার করে পুলিশ ।খবর পেয়ে বাকীরা  সুকৌশলে পালিয়ে যায় ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন (১) মুরাদ হোসেন রুবেল (৪০) পিতা- আব্দুল কাদের, মাদারীপুর জেলার কালকিনী থানার ফাসিয়া তলার এলাকার বাসিন্দা।  (২) মো. নজরুল ইসলাম (৫০),পিতা-মৃত. বাচ্চু মিয়া, নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর থানাধীন (পুরাতন বন্দর) সালেহ পাগলার দরবার এলাকার বাসিন্দা।

পলাতক আসামিরা হলেন,(১)সঞ্জয় (৪২) (২)অভি(৩৫),(৩)জাকির হোসেন (৪০) এবং (৪) মো: রাজু (৪২) ।

মামলার এজাহারে উল্লেখ্য যে, নারায়নগঞ্জের মডেল থানাধীন এস এম মালেহ রোড়স্থ হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের  প্রতি দোকান থেকে আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে ২৫ হাজার টাকা করে চাদাঁ দাবি করে ।তাদের কথা মত ব্যবসায়ীরা চাদাঁ দিতে অস্বীকৃতি জানালে বিভিন্ন সময় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এসে হুমকি-ধামকি প্রদান করে ।এই ভাবে হাবিব শপিং কমপ্লেক্সের বিভিন্ন মোবাইলের দোকান থেকে ৫ লাখ ৪৫ হাজার টাকা আদায় করে হাতিয়ে নেয়।

কে এই মুরাদ?

জানা গেছে, আটককৃত চাঁদাবাজ মুরাদ ধুরন্দর প্রকৃতির লোক, হাবিব শপিং কমপ্লেক্সে মোবাইল এক্সেসরিজ এর দোকান ব্যাবসায়ী। মাত্র কয়েকদিন আগে মালিক দোকানদার ফেডারেল কমিটির নামে সাংসদ পুত্রের আস্থাভজন হতে দৌড় ঝাপ করে।সফলও হন,পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এমপি পুত্রের সাথে ছবি পোস্ট করেন,যা অনেকেই দেখেছে, পাশাপাশি এমপি পুত্রের ঘনিষ্ঠ সহচর নাসিরের পাশে বিভিন্ন প্রোগ্রামের ছবি ব্যাপকভাবে দেখা গেছে। এক পর্যায়ে নামে বেনামে কিছু ছবি পোস্ট করে বনে যান আজমেরী ওসমানের কর্মী। কিছুদিন যেতে না যেতেই শুরু করেন চাঁদাবাজি! তবে শেষ রক্ষা আর হলো না,চাঁদাবাজীর দায়ে অবশেষে রুবেল এখন শ্রীঘরে।

এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন জানান, সাবেক সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নাসিম ওসমানের পুত্র আজমেরী ওসমানের নাম ভাঙ্গিয়ে হাবিব শপিং কমপ্লেক্সে চাদাঁবাজির অভিযোগে মুরাদ হোসেন রুবেল ও নজরুল ইসলাম নামে দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে ।বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যহত রয়েছে ।

এ ব্যাপারে সাংসদ পুত্র আজমেরী ওসমানের সাথে একাধিকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি, মোবাইল রিসিভ করেননি।