ঢাকা ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিবির জিজ্ঞাসাবাদে লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন মিল্টন সমাদ্দার

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:৫১:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ মে ২০২৪ ৩১ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।

 

 

প্রতারণা,মানবপাচার সহ নানান অনিয়মে গ্রেফতার ‘চাইল্ড অ্যান্ড ওল্ড এইজ কেয়ার’ আশ্রমের চেয়ারম্যান মিল্টন সমাদ্দারকে ডিবি পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে ভয়ংকর ও লোমহর্ষক কাহিনীর বর্ণনা উঠে এসেছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) ডিবি পুলিশ প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

তিনি বলেন, রাস্তাঘাটে পড়ে থাকা গরিব ও অসহায় এবং অভিভাবকহীন মানুষকে তুলে এনে আশ্রয় দেওয়া হতো ‘চাইল্ড অ্যান্ড ওল্ড এজ কেয়ার’ আশ্রমে। এদের মধ্যে কারও কারও হাত-পায়ে পচন সহ নানান ব্যাধিতে ধরেছিল। যখন অপারেশনের প্রয়োজন হতো, তখন আশ্রমের চেয়ারম্যান মিল্টন সমাদ্দার নিজে ব্লেড ছুরি দিয়ে তাদের হাত, আঙুল সহ ক্ষত স্থান কেটে  ফেলতেন। রক্ত ঝরিয়ে, অপারেশনের নামে হাত-পা কেটে পৈশাচিক আনন্দ উপভোগ করতেন মাদকাসক্ত মিল্টন।

রোববার (৫ মে) দুপুরে ডিবির প্রধান কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে হারুন অর রশীদ এসব ভয়ংকর তথ্য দেন।

তিনি আরও বলেন, মিল্টন সমাদ্দার ভয়াবহ অপরাধ করেছেন। একটি দুটি অপরাধ করেননি, তার বিরুদ্ধে ওঠা সকল ধরনের অভিযোগই ভয়াবহ। তিনি নিজেই ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন। তার অ্যাকাউন্টে এখনও ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা আছে। এতগুলো টাকা থাকার পরও তিনি কাউকে কোনো ধরনের চিকিৎসা করাননি।

তিনি নিজেই বনে যেতেন অপারেশন থিয়েটারের হেড ডাক্তার। তার অপারেশন থিয়েটারে থাকতো একাধিক ছুরি ও কিছু ব্লেড। তিনি এগুলো চাকু ব্লেড দিয়েই নিজেই অপারেশন করতেন। এমন ভয়াবহ, অমানবিক ও অসভ্য আচরণ, এটা বাংলাদেশের মানুষের জন্যই তো লজ্জাজনক।

যে সকল লোকজন তার সঙ্গে জড়িত, যারা নানানভাবে পেট্রোনাইজ করেছে, সহযোগিতা করেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ফলোয়ার বাড়ানোর জন্য যারা পেট্রোনাস করেছে,এ ফাউন্ডেশনের প্রত্যেককে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে জানান ডিবি পুলিশ প্রধান।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ডিবির জিজ্ঞাসাবাদে লোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন মিল্টন সমাদ্দার

আপডেট সময় : ০২:৫১:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ মে ২০২৪

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।

 

 

প্রতারণা,মানবপাচার সহ নানান অনিয়মে গ্রেফতার ‘চাইল্ড অ্যান্ড ওল্ড এইজ কেয়ার’ আশ্রমের চেয়ারম্যান মিল্টন সমাদ্দারকে ডিবি পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে ভয়ংকর ও লোমহর্ষক কাহিনীর বর্ণনা উঠে এসেছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) ডিবি পুলিশ প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

তিনি বলেন, রাস্তাঘাটে পড়ে থাকা গরিব ও অসহায় এবং অভিভাবকহীন মানুষকে তুলে এনে আশ্রয় দেওয়া হতো ‘চাইল্ড অ্যান্ড ওল্ড এজ কেয়ার’ আশ্রমে। এদের মধ্যে কারও কারও হাত-পায়ে পচন সহ নানান ব্যাধিতে ধরেছিল। যখন অপারেশনের প্রয়োজন হতো, তখন আশ্রমের চেয়ারম্যান মিল্টন সমাদ্দার নিজে ব্লেড ছুরি দিয়ে তাদের হাত, আঙুল সহ ক্ষত স্থান কেটে  ফেলতেন। রক্ত ঝরিয়ে, অপারেশনের নামে হাত-পা কেটে পৈশাচিক আনন্দ উপভোগ করতেন মাদকাসক্ত মিল্টন।

রোববার (৫ মে) দুপুরে ডিবির প্রধান কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে হারুন অর রশীদ এসব ভয়ংকর তথ্য দেন।

তিনি আরও বলেন, মিল্টন সমাদ্দার ভয়াবহ অপরাধ করেছেন। একটি দুটি অপরাধ করেননি, তার বিরুদ্ধে ওঠা সকল ধরনের অভিযোগই ভয়াবহ। তিনি নিজেই ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন। তার অ্যাকাউন্টে এখনও ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা আছে। এতগুলো টাকা থাকার পরও তিনি কাউকে কোনো ধরনের চিকিৎসা করাননি।

তিনি নিজেই বনে যেতেন অপারেশন থিয়েটারের হেড ডাক্তার। তার অপারেশন থিয়েটারে থাকতো একাধিক ছুরি ও কিছু ব্লেড। তিনি এগুলো চাকু ব্লেড দিয়েই নিজেই অপারেশন করতেন। এমন ভয়াবহ, অমানবিক ও অসভ্য আচরণ, এটা বাংলাদেশের মানুষের জন্যই তো লজ্জাজনক।

যে সকল লোকজন তার সঙ্গে জড়িত, যারা নানানভাবে পেট্রোনাইজ করেছে, সহযোগিতা করেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ফলোয়ার বাড়ানোর জন্য যারা পেট্রোনাস করেছে,এ ফাউন্ডেশনের প্রত্যেককে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে জানান ডিবি পুলিশ প্রধান।