ঢাকা ০৩:৫৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নারায়ণগঞ্জে ‘ভুল’ চিকিৎসায় তরুণীর মৃত্যু, আবাসিক চিকিৎসকসহ আটক ৫

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:৩৫:০৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০২৪ ৩১ বার পড়া হয়েছে
টনসিল’ অপারেশনে শ্বাসনালী কর্তনে মৃত্যুর অভিযোগ..!
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি।।
নারায়ণগঞ্জের প্রানকেন্দ্র চাষাড়ায় বি বি রোডস্থ সিলভার ক্রিসেন্ট হসপিটাল ক্লিনিকে ঠান্ডাজনিত টনসিল অপারেশনের সময় ভুল চিকিৎসায় শ্বাসনালী কেটে মেহেনাজ আক্তার আনিকা(১৭) নামে এক তরুণীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় উক্ত হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকসহ পাঁচজনকে আটক করেছে সদর মডেল থানা পুলিশ।
রবিবার (২৪ মার্চ) সকাল ৯.৩০টার দিকে ওই তরুণীর মৃত্যু হয়। পরে ৯৯৯ এ কল পেয়ে পুলিশ এসে ওই হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়।
সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন দৈনিক সমকালীন কাগজ কে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
ভুক্তভোগী নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, টনসিল অপারেশন করতে গিয়ে গলার শ্বাসনালী কেটে এ মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা এই হত্যার বিচার চাই, ডাক্তারের ফাঁসি চাই।
নিহতের বাবা আমানত উল্লাহ বলেন, ‘আমার মেয়ের টনসিলের চিকিৎসার জন্য স্থানীয় বি বি রোডস্থ সিলভার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করি। ভর্তির পরে চিকিৎসক নানান ধরনের টেস্ট দেয় ডাক্তার আব্দুল্লাহ আল মামুন।
টেস্ট শেষে তিনি জানান টনসিলের অপারেশন করতে হবে। অপারেশন জন্য ৮০ হাজার টাকা লাগবে বলে চুক্তি হয়।
এরপর শনিবার (২৩ মার্চ) রাত ৯টার দিকে আমার মেয়ের অপারেশন হয়। অপারেশন শেষে ডাক্তার মেয়েকে কিছু খাওয়াতে নিষেধ করে। রাত ৩টার দিকে মেয়ে ব্যথায় কান্নাকাটি করতে থাকলে নার্সদের সঙ্গে কথা বললে তারা ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে ইনজেকশন দেয়ার পরামর্শ দেয়। এর ১ ঘণ্টা পর আবার ব্যথা উঠলে আবার ইনজেকশন দেয়া হয়।
পরের দিন আজ (২৪ মার্চ) সকাল ৯টার দিকে আমার মেয়ের হাত-পা নিল হয়ে যায় এবং প্রচন্ড ব্যাথায় ছটফট করতে করতে মৃত্যুর কোলে।ঢলে পরে এক পর্যায়ে মৃত্যু বরন করে ।’
তিনি আরও জানান, রোগীর অপারেশনের পর থেকে সেই ডাক্তার আমার মেয়ের আর কোনো ধরনের খোঁজ খবর নেয়নি। ডাক্তারের ভুল চিকিৎসার কারণে আমার মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। আমার মেয়ের হত্যার বিচার চাই।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন বলেন, আমরা ‘৯৯৯ এ কল পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

নারায়ণগঞ্জে ‘ভুল’ চিকিৎসায় তরুণীর মৃত্যু, আবাসিক চিকিৎসকসহ আটক ৫

আপডেট সময় : ১০:৩৫:০৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০২৪
টনসিল’ অপারেশনে শ্বাসনালী কর্তনে মৃত্যুর অভিযোগ..!
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি।।
নারায়ণগঞ্জের প্রানকেন্দ্র চাষাড়ায় বি বি রোডস্থ সিলভার ক্রিসেন্ট হসপিটাল ক্লিনিকে ঠান্ডাজনিত টনসিল অপারেশনের সময় ভুল চিকিৎসায় শ্বাসনালী কেটে মেহেনাজ আক্তার আনিকা(১৭) নামে এক তরুণীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় উক্ত হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকসহ পাঁচজনকে আটক করেছে সদর মডেল থানা পুলিশ।
রবিবার (২৪ মার্চ) সকাল ৯.৩০টার দিকে ওই তরুণীর মৃত্যু হয়। পরে ৯৯৯ এ কল পেয়ে পুলিশ এসে ওই হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়।
সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন দৈনিক সমকালীন কাগজ কে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
ভুক্তভোগী নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, টনসিল অপারেশন করতে গিয়ে গলার শ্বাসনালী কেটে এ মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা এই হত্যার বিচার চাই, ডাক্তারের ফাঁসি চাই।
নিহতের বাবা আমানত উল্লাহ বলেন, ‘আমার মেয়ের টনসিলের চিকিৎসার জন্য স্থানীয় বি বি রোডস্থ সিলভার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করি। ভর্তির পরে চিকিৎসক নানান ধরনের টেস্ট দেয় ডাক্তার আব্দুল্লাহ আল মামুন।
টেস্ট শেষে তিনি জানান টনসিলের অপারেশন করতে হবে। অপারেশন জন্য ৮০ হাজার টাকা লাগবে বলে চুক্তি হয়।
এরপর শনিবার (২৩ মার্চ) রাত ৯টার দিকে আমার মেয়ের অপারেশন হয়। অপারেশন শেষে ডাক্তার মেয়েকে কিছু খাওয়াতে নিষেধ করে। রাত ৩টার দিকে মেয়ে ব্যথায় কান্নাকাটি করতে থাকলে নার্সদের সঙ্গে কথা বললে তারা ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে ইনজেকশন দেয়ার পরামর্শ দেয়। এর ১ ঘণ্টা পর আবার ব্যথা উঠলে আবার ইনজেকশন দেয়া হয়।
পরের দিন আজ (২৪ মার্চ) সকাল ৯টার দিকে আমার মেয়ের হাত-পা নিল হয়ে যায় এবং প্রচন্ড ব্যাথায় ছটফট করতে করতে মৃত্যুর কোলে।ঢলে পরে এক পর্যায়ে মৃত্যু বরন করে ।’
তিনি আরও জানান, রোগীর অপারেশনের পর থেকে সেই ডাক্তার আমার মেয়ের আর কোনো ধরনের খোঁজ খবর নেয়নি। ডাক্তারের ভুল চিকিৎসার কারণে আমার মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। আমার মেয়ের হত্যার বিচার চাই।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন বলেন, আমরা ‘৯৯৯ এ কল পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’