ঢাকা ১০:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস আজ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:৫৩:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ মে ২০২৪ ২১ বার পড়া হয়েছে

প্রতিকী ছবি:’

 

বিশ্বে ন্যায় বর্নাঢ্য আয়োজনে বাংলাদেশে।পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস’

 

 

সমকালীন কাগজ ডেস্ক।।

আজ ৩ মে, বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস। মুক্ত সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা আদায়ের দাবিতে প্রতি বছর বিশ্বজুড়ে দিবসটি পালিত হয়। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘‌ধরিত্রীর জন্য গণমাধ্যম’ পরিবেশগত সংকট মোকাবিলায় সাংবাদিকতা’:

ইউনেস্কোর ওয়েবসাইট তথ্য মতে, এবার মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের মূল আয়োজনটি হচ্ছে চিলিতে। ইউনেস্কো ও চিলি যৌথভাবে এর বর্ণাঢ্য আয়োজন করেছে।

২ মে থেকে ৪ মে চিলি এবং ইউনেস্কোতে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের ৩১তম সম্মেলনের জাকজমকপূর্ন আয়োজন করবে। চিলির সান্তিয়াগোতে বৈশ্বিক এ আয়োজনে সরাসরি ও ভার্চুয়ালি যুক্ত থাকবেন বিশ্বের মুক্ত গণমাধ্যম আন্দোলনের নেতাকর্মীরা।

এ বছর বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসে বর্তমান বৈশ্বিক পরিবেশগত সংকটের প্রেক্ষাপটে সাংবাদিকতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করা হবে।

১৯৯১ সালে ইউনেস্কোর ২৬তম সাধারণ অধিবেশনের সুপারিশ অনুসারে ১৯৯৩ সালে জাতিসংঘের সাধারণ সভায় ৩ মে তারিখটিকে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের স্বীকৃতি দেয়া হয়। এর পর থেকে বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমকর্মীরা এ দিবসটি অনাড়ম্বর আয়োজনে পালন করে আসছেন।

মূলত সাংবাদিকতার স্বাধীনতা, গণমাধ্যমের মৌলিক নীতিমালা অনুসরণ, বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমের স্বাধীনতার মূল্যায়ন, পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় ক্ষতিগ্রস্ত ও জীবনদানকারী সাংবাদিকদের স্মরণ ও তাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয় দিবসটিতে।

রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স (আরএসএফ) প্রতি বছর ১৮০টি দেশ ও অঞ্চলের মধ্য থেকে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচক প্রকাশ করে। আরএসএফের গত বছর প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে ২০২৩ সালে একধাপ পিছিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ১৬৩তম। বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৩৫ দশমিক ৩১। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এ  দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে।

 

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) জানিয়েছে, জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিতের বিকল্প নেই। চলমান জলবায়ু সংকট ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সুরক্ষা নিশ্চিতের বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে অগ্রাধিকার দিতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস আজ

আপডেট সময় : ১০:৫৩:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ মে ২০২৪

প্রতিকী ছবি:’

 

বিশ্বে ন্যায় বর্নাঢ্য আয়োজনে বাংলাদেশে।পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস’

 

 

সমকালীন কাগজ ডেস্ক।।

আজ ৩ মে, বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস। মুক্ত সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা আদায়ের দাবিতে প্রতি বছর বিশ্বজুড়ে দিবসটি পালিত হয়। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘‌ধরিত্রীর জন্য গণমাধ্যম’ পরিবেশগত সংকট মোকাবিলায় সাংবাদিকতা’:

ইউনেস্কোর ওয়েবসাইট তথ্য মতে, এবার মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের মূল আয়োজনটি হচ্ছে চিলিতে। ইউনেস্কো ও চিলি যৌথভাবে এর বর্ণাঢ্য আয়োজন করেছে।

২ মে থেকে ৪ মে চিলি এবং ইউনেস্কোতে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের ৩১তম সম্মেলনের জাকজমকপূর্ন আয়োজন করবে। চিলির সান্তিয়াগোতে বৈশ্বিক এ আয়োজনে সরাসরি ও ভার্চুয়ালি যুক্ত থাকবেন বিশ্বের মুক্ত গণমাধ্যম আন্দোলনের নেতাকর্মীরা।

এ বছর বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসে বর্তমান বৈশ্বিক পরিবেশগত সংকটের প্রেক্ষাপটে সাংবাদিকতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করা হবে।

১৯৯১ সালে ইউনেস্কোর ২৬তম সাধারণ অধিবেশনের সুপারিশ অনুসারে ১৯৯৩ সালে জাতিসংঘের সাধারণ সভায় ৩ মে তারিখটিকে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসের স্বীকৃতি দেয়া হয়। এর পর থেকে বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমকর্মীরা এ দিবসটি অনাড়ম্বর আয়োজনে পালন করে আসছেন।

মূলত সাংবাদিকতার স্বাধীনতা, গণমাধ্যমের মৌলিক নীতিমালা অনুসরণ, বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যমের স্বাধীনতার মূল্যায়ন, পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় ক্ষতিগ্রস্ত ও জীবনদানকারী সাংবাদিকদের স্মরণ ও তাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয় দিবসটিতে।

রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স (আরএসএফ) প্রতি বছর ১৮০টি দেশ ও অঞ্চলের মধ্য থেকে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচক প্রকাশ করে। আরএসএফের গত বছর প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে ২০২৩ সালে একধাপ পিছিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ১৬৩তম। বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৩৫ দশমিক ৩১। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এ  দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে।

 

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) জানিয়েছে, জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিতের বিকল্প নেই। চলমান জলবায়ু সংকট ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সুরক্ষা নিশ্চিতের বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে অগ্রাধিকার দিতে হবে।