ঢাকা ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নারায়ণগঞ্জ সহ মুন্সীগঞ্জেও যুক্ত হচ্ছে মেট্টোরেল

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৪:৫৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪ ২০ বার পড়া হয়েছে
মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি।।
রাজধানী  ঢাকার চারপাশের জেলাগুলোকে সংযুক্ত করা হবে মেট্রোরেলের সাথে।ঢাকা মহানগরীর সঙ্গে আশপাশের জেলার যোগাযোগ সহজ করতে গাজীপুর,নারায়ণগঞ্জ,মুন্সীগঞ্জ,মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী জেলা যুক্ত হচ্ছে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে।২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-২ মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ শহর মেট্রোরেলের নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে।এ ছাড়া এমআরটি লাইন-৬ এবং এমআরটি লাইন-১ মাধ্যমে যুক্ত হবে গাজীপুর ও মুন্সীগঞ্জ জেলা।এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুটের মাধ্যমে নরসিংদী ও মানিকগঞ্জ জেলা যুক্ত হবে। এমআরটি লাইন-৫ সাউর্দান ও এমআরটি লাইন-৪ সম্প্রসারিত হবে নারায়ণগঞ্জ থেকে ভুলতা ও কাঁচপুর পর্যন্ত।২০৪১ সালের মধ্যে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে বলে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের(ডিএমটিসিএল)কর্মকর্তারা জানান।এ বিষয়ে ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিক বলেন,মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে পর্যায়ক্রমে ঢাকা আশপাশের জেলাগুলো যুক্ত হবে।২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-২ মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ মেট্রোরেল নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে।এরপর ২০৪১ সালের মধ্যে যুক্ত হবে গাজীপুর,মুন্সীগঞ্জ,মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী।ইতোমধ্যে এমআরটি লাইন-৬ রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে টঙ্গী পর্যন্ত সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।ডিএমটিসিএল সূত্র জানায়, রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে টঙ্গী পর্যন্ত বাড়ানো হচ্ছে মেট্রোরেল লাইন-৬।এই অংশে নতুন করে যুক্ত হবে আরও ৫ স্টেশন। এই লাইনটি বর্তমানে মতিঝিল থেকে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হচ্ছে।এখন মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত সম্প্রসারণের প্রক্রিয়া শুরু করেছে।এ লাইনের কাজ শেষ হলে মেট্রোরেল অতিরিক্ত ৫ লাখ যাত্রী পরিবহন করতে পারবে। উত্তরা উত্তর থেকে টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত এ লাইনের দৈর্ঘ্য হবে ৭ দশমিক ৫ কিলোমিটার।এ রুটে হবে নতুন ৫ স্টেশন-দিয়াবাড়ী বাজার, সোনারগাঁও জনপদ রোড পূর্ব ও পশ্চিম,টঙ্গী বাজার এবং টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন।এ বিষয়ে ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক জনকণ্ঠকে বলেন,সাভারের আশুলিয়া পর্যন্ত মেট্রোরেল যাওয়ার কথা ছিল।কিন্তু নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী টঙ্গী পর্যন্ত বর্ধিত হচ্ছে মেট্রোরেলের লাইন।এমআরটি লাইন-৬ নির্মাণের সময়ই দিয়াবাড়ী থেকে প্রায় এক কিলোমিটার পথ তৈরি করে রাখা হয়েছে ভবিষ্যতের কথা ভেবে। এরই মধ্যে বর্ধিত এ পথের সম্ভাব্যতা যাচাই চলছে।
দ্রুতই নকশা চূড়ান্ত করে টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু হবে। প্রথমে পরিকল্পনা ছিল পথটি আশুলিয়া পর্যন্ত নেওয়ার।তবে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কারণে নতুন এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এটি টঙ্গী রেলস্টেশন পর্যন্ত সম্প্রসারিত করা হবে।মূলত টঙ্গী রেলস্টেশন এবং সড়ক জংশনকে সংযুক্ত করতে পারলে ওই অঞ্চলের মানুষের সুবিধা বাড়বে।এরই মধ্যে সম্ভাব্যতা যাচাই শুরু হয়েছে।এ পথ চালু হলে টঙ্গী থেকে কমলাপুর পর্যন্ত যাত্রা পথ হবে ৪৮ মিনিটের।’
রাজধানীর কমলাপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার মদনপুর পর্যন্ত উড়াল ও পাতাল সমন্বয়ে প্রায় ১৬ কিলোমিটার পথে নির্মিত হবে এমআরটি লাইন-৪ বা সর্বশেষ মেট্রোরেল।এই মেট্রোরেল নির্মাণের জন্য গত বছর ৪ মে কোরিয়া সরকারের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে সরকার।এই রুটে সম্ভাব্যতা যাচাই ও পরামর্শ প্রতিষ্ঠান নিয়োগের জন্য গত ২৮ ফেব্রুয়ারি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার কাছে আরইপি আহ্বান করা হয়েছে বলে ডিএমটিসিএল কর্মকর্তারা জানান।
মেট্রোরেলের সঙ্গে যুক্ত হবে ৫ জেলা
ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল)দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা অনুযায়ী ঢাকার আশপাশের ৫ জেলা মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হবে।এর মধ্যে এমআরটি লাইন-৬’র মাধ্যমে যুক্ত হবে গাজীপুর জেলা। এমআরটি লাইন-৫’র সাউদার্ন রুটকে পূর্বাচলের দাশেরকান্দি মেট্রোরেল স্টেশন থেকে বরপা হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার ভুলতা পর্যন্ত যাবে।তাই নারায়ণগঞ্জ,মুন্সীগঞ্জ,মানিকগঞ্জ,গাজীপুর এবং নরসিংদী জেলাকে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনার দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।প্রথম পর্যায়ে ২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-২ এর মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ মহানগরীকে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে।
দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০৪১ সালের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ ও গাজীপুর জেলা মেট্রোরেলের নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে।তৃতীয় পর্যায়ে মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী জেলাকে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনার পরিকল্পনা রয়েছে বলে ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তারা জানান। ডিএমটিসিএলের সূত্র জানায়,প্রথম পর্যায়ে ২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৬,এমআরটি লাইন-১,এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুট,এমআরটি লাইন-৫ সাউদার্ন রুট,এমআরটি লাইন-২ এবং এমআরটি লাইন-৪ এই ছয়টি মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজ শেষ হবে।পরবর্তীতে দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ে এই ৬টি মেট্রোরেলের রুট আরও বৃদ্ধি করা হবে।
এর মধ্যে দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০৪১ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৬ রুটকে উত্তরা উত্তর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে গাজীপুর জেলার টঙ্গী পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এ ছাড়া এমআরটি লাইন-১ রুটকে কমলাপুর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে মুন্সীগঞ্জ জেলার ঝিলমিল পর্যন্ত এবং বিমানবন্দর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে গাজীপুর সদর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুটকে সাভারের হেমায়েতপুর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে  ঢাকা জেলার নবীনগর হয়ে বাইপাইল পর্যন্ত এবং নতুন বাজার মেট্রোরেল স্টেশন থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার ভুলতা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-সাউদার্ন রুটকে পূর্বাচলের দাশেরকান্দি মেট্রোরেল স্টেশন থেকে বরপা হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার ভুলতা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।তৃতীয় পর্যায়ে ২০৫১ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৬ রুটকে উত্তরা উত্তর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে ঢাকা জেলার আশুলিয়া হয়ে বাইপাইল পর্যন্ত বৃদ্ধি পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া এমআরটি লাইন-১ রুটকে পূর্বাচল টার্মিনাল মেট্রোরেল স্টেশন থেকে নরসিংদী জেলার শেখেরচর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুটকে ভুলতা থেকে নরসিংদী জেলা সদর পর্যন্ত এবং নবীনগর থেকে মানিকগঞ্জ জেলা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-২ রুটকে নারায়ণগঞ্জ থেকে মুন্সীগঞ্জ জেলা সদর পর্যন্ত এবং এমআরটি লাইন-৪ রুটকে কাঁচপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার বরপা পর্যন্ত বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে।ইতোমধ্যে রিভাইস সমন্বিত পরিবহন পরিকল্পনার(আরএসটিপি)মিড-টার্ম রিভিউতে (এমটিআর)এমআরটি লাইনসমূহের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে বলে ডিএমটিসিএল কর্মকর্তরা জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

নারায়ণগঞ্জ সহ মুন্সীগঞ্জেও যুক্ত হচ্ছে মেট্টোরেল

আপডেট সময় : ০৭:৫৪:৫৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪
মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি।।
রাজধানী  ঢাকার চারপাশের জেলাগুলোকে সংযুক্ত করা হবে মেট্রোরেলের সাথে।ঢাকা মহানগরীর সঙ্গে আশপাশের জেলার যোগাযোগ সহজ করতে গাজীপুর,নারায়ণগঞ্জ,মুন্সীগঞ্জ,মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী জেলা যুক্ত হচ্ছে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে।২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-২ মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ শহর মেট্রোরেলের নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে।এ ছাড়া এমআরটি লাইন-৬ এবং এমআরটি লাইন-১ মাধ্যমে যুক্ত হবে গাজীপুর ও মুন্সীগঞ্জ জেলা।এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুটের মাধ্যমে নরসিংদী ও মানিকগঞ্জ জেলা যুক্ত হবে। এমআরটি লাইন-৫ সাউর্দান ও এমআরটি লাইন-৪ সম্প্রসারিত হবে নারায়ণগঞ্জ থেকে ভুলতা ও কাঁচপুর পর্যন্ত।২০৪১ সালের মধ্যে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে বলে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের(ডিএমটিসিএল)কর্মকর্তারা জানান।এ বিষয়ে ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিক বলেন,মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে পর্যায়ক্রমে ঢাকা আশপাশের জেলাগুলো যুক্ত হবে।২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-২ মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ মেট্রোরেল নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে।এরপর ২০৪১ সালের মধ্যে যুক্ত হবে গাজীপুর,মুন্সীগঞ্জ,মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী।ইতোমধ্যে এমআরটি লাইন-৬ রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে টঙ্গী পর্যন্ত সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।ডিএমটিসিএল সূত্র জানায়, রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে টঙ্গী পর্যন্ত বাড়ানো হচ্ছে মেট্রোরেল লাইন-৬।এই অংশে নতুন করে যুক্ত হবে আরও ৫ স্টেশন। এই লাইনটি বর্তমানে মতিঝিল থেকে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হচ্ছে।এখন মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত সম্প্রসারণের প্রক্রিয়া শুরু করেছে।এ লাইনের কাজ শেষ হলে মেট্রোরেল অতিরিক্ত ৫ লাখ যাত্রী পরিবহন করতে পারবে। উত্তরা উত্তর থেকে টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত এ লাইনের দৈর্ঘ্য হবে ৭ দশমিক ৫ কিলোমিটার।এ রুটে হবে নতুন ৫ স্টেশন-দিয়াবাড়ী বাজার, সোনারগাঁও জনপদ রোড পূর্ব ও পশ্চিম,টঙ্গী বাজার এবং টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন।এ বিষয়ে ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক জনকণ্ঠকে বলেন,সাভারের আশুলিয়া পর্যন্ত মেট্রোরেল যাওয়ার কথা ছিল।কিন্তু নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী টঙ্গী পর্যন্ত বর্ধিত হচ্ছে মেট্রোরেলের লাইন।এমআরটি লাইন-৬ নির্মাণের সময়ই দিয়াবাড়ী থেকে প্রায় এক কিলোমিটার পথ তৈরি করে রাখা হয়েছে ভবিষ্যতের কথা ভেবে। এরই মধ্যে বর্ধিত এ পথের সম্ভাব্যতা যাচাই চলছে।
দ্রুতই নকশা চূড়ান্ত করে টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু হবে। প্রথমে পরিকল্পনা ছিল পথটি আশুলিয়া পর্যন্ত নেওয়ার।তবে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কারণে নতুন এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এটি টঙ্গী রেলস্টেশন পর্যন্ত সম্প্রসারিত করা হবে।মূলত টঙ্গী রেলস্টেশন এবং সড়ক জংশনকে সংযুক্ত করতে পারলে ওই অঞ্চলের মানুষের সুবিধা বাড়বে।এরই মধ্যে সম্ভাব্যতা যাচাই শুরু হয়েছে।এ পথ চালু হলে টঙ্গী থেকে কমলাপুর পর্যন্ত যাত্রা পথ হবে ৪৮ মিনিটের।’
রাজধানীর কমলাপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার মদনপুর পর্যন্ত উড়াল ও পাতাল সমন্বয়ে প্রায় ১৬ কিলোমিটার পথে নির্মিত হবে এমআরটি লাইন-৪ বা সর্বশেষ মেট্রোরেল।এই মেট্রোরেল নির্মাণের জন্য গত বছর ৪ মে কোরিয়া সরকারের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে সরকার।এই রুটে সম্ভাব্যতা যাচাই ও পরামর্শ প্রতিষ্ঠান নিয়োগের জন্য গত ২৮ ফেব্রুয়ারি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার কাছে আরইপি আহ্বান করা হয়েছে বলে ডিএমটিসিএল কর্মকর্তারা জানান।
মেট্রোরেলের সঙ্গে যুক্ত হবে ৫ জেলা
ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল)দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা অনুযায়ী ঢাকার আশপাশের ৫ জেলা মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হবে।এর মধ্যে এমআরটি লাইন-৬’র মাধ্যমে যুক্ত হবে গাজীপুর জেলা। এমআরটি লাইন-৫’র সাউদার্ন রুটকে পূর্বাচলের দাশেরকান্দি মেট্রোরেল স্টেশন থেকে বরপা হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার ভুলতা পর্যন্ত যাবে।তাই নারায়ণগঞ্জ,মুন্সীগঞ্জ,মানিকগঞ্জ,গাজীপুর এবং নরসিংদী জেলাকে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনার দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।প্রথম পর্যায়ে ২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-২ এর মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ মহানগরীকে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে।
দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০৪১ সালের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ ও গাজীপুর জেলা মেট্রোরেলের নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে।তৃতীয় পর্যায়ে মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী জেলাকে মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনার পরিকল্পনা রয়েছে বলে ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তারা জানান। ডিএমটিসিএলের সূত্র জানায়,প্রথম পর্যায়ে ২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৬,এমআরটি লাইন-১,এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুট,এমআরটি লাইন-৫ সাউদার্ন রুট,এমআরটি লাইন-২ এবং এমআরটি লাইন-৪ এই ছয়টি মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজ শেষ হবে।পরবর্তীতে দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ে এই ৬টি মেট্রোরেলের রুট আরও বৃদ্ধি করা হবে।
এর মধ্যে দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০৪১ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৬ রুটকে উত্তরা উত্তর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে গাজীপুর জেলার টঙ্গী পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এ ছাড়া এমআরটি লাইন-১ রুটকে কমলাপুর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে মুন্সীগঞ্জ জেলার ঝিলমিল পর্যন্ত এবং বিমানবন্দর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে গাজীপুর সদর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুটকে সাভারের হেমায়েতপুর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে  ঢাকা জেলার নবীনগর হয়ে বাইপাইল পর্যন্ত এবং নতুন বাজার মেট্রোরেল স্টেশন থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার ভুলতা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-সাউদার্ন রুটকে পূর্বাচলের দাশেরকান্দি মেট্রোরেল স্টেশন থেকে বরপা হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার ভুলতা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।তৃতীয় পর্যায়ে ২০৫১ সালের মধ্যে এমআরটি লাইন-৬ রুটকে উত্তরা উত্তর মেট্রোরেল স্টেশন থেকে ঢাকা জেলার আশুলিয়া হয়ে বাইপাইল পর্যন্ত বৃদ্ধি পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া এমআরটি লাইন-১ রুটকে পূর্বাচল টার্মিনাল মেট্রোরেল স্টেশন থেকে নরসিংদী জেলার শেখেরচর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-৫ নর্দান রুটকে ভুলতা থেকে নরসিংদী জেলা সদর পর্যন্ত এবং নবীনগর থেকে মানিকগঞ্জ জেলা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হবে।এমআরটি লাইন-২ রুটকে নারায়ণগঞ্জ থেকে মুন্সীগঞ্জ জেলা সদর পর্যন্ত এবং এমআরটি লাইন-৪ রুটকে কাঁচপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার বরপা পর্যন্ত বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে।ইতোমধ্যে রিভাইস সমন্বিত পরিবহন পরিকল্পনার(আরএসটিপি)মিড-টার্ম রিভিউতে (এমটিআর)এমআরটি লাইনসমূহের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে বলে ডিএমটিসিএল কর্মকর্তরা জানান।