ঢাকা ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফরিদপুরে শোক দিবসে নির্মিত বঙ্গবন্ধু ছবি সম্বলিত তোরন ভাঙচুর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:০৩:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ অগাস্ট ২০২৩ ৬২ বার পড়া হয়েছে
ফরিদপুর প্রতিনিধি।।
ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে নির্মিত তোরণ ভাঙ্চুর করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে ১৫ আগস্ট ঘাতকদের গুলিতে নিহত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সদস্যদের ব্যানার বেষ্টিত ছবি।
রবিবার (৩০ জুলাই) দিবাগত রাতে সালথা বাজারে ভাঙচুরের এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে,  সালথা বাজারের মধ্যে প্রধান সড়কের ওপর এই তোরণ নির্মাণ করেছিলেন নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও বসুন্ধরা গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়া।এছাড়া সে ফরিদপুর-২(সালথা-নগরকান্দা) আসনে আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সোমবার (৩১ জুলাই) যুবলীগের সম্মেলন উপলক্ষে বেশ কয়েকটি তোরণ নির্মাণ করেছে যুবলীগ নেতারা। এরমধ্যে আগষ্টের জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে একটি তোরণ নির্মাণ করেন অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়া। যুবলীগের সম্মেলনের তোরণে কেউ হানা না দিলেও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে নির্মিত তোরণটির কিছু অংশ ভেঙে ফেলা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সম্বলিত ছবিসহ ব্যানারগুলো ও কাপড় ছিঁড়ে মাটিতে ফেলে রাখা হয়েছে। তবে কে বা কারা তোরণটি ভেঙে ফেলেছে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেনি বাজারের ব্যবসায়ীরা।
বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, গত শনিবার তোরণটি নির্মাণ কাজ শেষ করা হয়। সোমবার সকালে এসে দেখা যায়, তোরণটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে রাতের আঁধারে কেউ তোরণটি ভেঙেছে।
এ ব্যাপারে অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়া বলেন, জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে সালথা ও নগরকান্দায় কয়েকটি গেট নির্মাণ করেছি। এর মধ্যে সালথা বাজারে নির্মিত গেটটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতাসহ তাদের পরিবারের ছবি ছিঁড়ে মাটিতে ফেলা দেওয়া হয়েছে। এটা একটি জঘন্য ঘৃণিত কাজ। যারা এই কাজ করেছে তারা বঙ্গবন্ধুর পরিবারের শত্রু, দেশের শত্রু, স্বাধীনতা বিরোধী। আমি এই দুর্বৃত্তদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবি করছি।
সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ  (ওসি) মো. শেখ সাদিক বলেন, নির্মিত তোরণটির সঙ্গে থাকা ব্যানার ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে। ঘটনার পর একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাস্থলের আশপাশে থাকা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে। এছাড়া যেখানে জাতীয় শোকদিবসের তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে, সেসব স্থানে পুলিশের পাহারা বসানো হবে। পুলিশ সন্ধ্যা থেকে ওইসব এলাকায় টহল দেবে বলে জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ফরিদপুরে শোক দিবসে নির্মিত বঙ্গবন্ধু ছবি সম্বলিত তোরন ভাঙচুর

আপডেট সময় : ০৬:০৩:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ অগাস্ট ২০২৩
ফরিদপুর প্রতিনিধি।।
ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে নির্মিত তোরণ ভাঙ্চুর করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে ১৫ আগস্ট ঘাতকদের গুলিতে নিহত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সদস্যদের ব্যানার বেষ্টিত ছবি।
রবিবার (৩০ জুলাই) দিবাগত রাতে সালথা বাজারে ভাঙচুরের এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে,  সালথা বাজারের মধ্যে প্রধান সড়কের ওপর এই তোরণ নির্মাণ করেছিলেন নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও বসুন্ধরা গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়া।এছাড়া সে ফরিদপুর-২(সালথা-নগরকান্দা) আসনে আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সোমবার (৩১ জুলাই) যুবলীগের সম্মেলন উপলক্ষে বেশ কয়েকটি তোরণ নির্মাণ করেছে যুবলীগ নেতারা। এরমধ্যে আগষ্টের জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে একটি তোরণ নির্মাণ করেন অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়া। যুবলীগের সম্মেলনের তোরণে কেউ হানা না দিলেও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে নির্মিত তোরণটির কিছু অংশ ভেঙে ফেলা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সম্বলিত ছবিসহ ব্যানারগুলো ও কাপড় ছিঁড়ে মাটিতে ফেলে রাখা হয়েছে। তবে কে বা কারা তোরণটি ভেঙে ফেলেছে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেনি বাজারের ব্যবসায়ীরা।
বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, গত শনিবার তোরণটি নির্মাণ কাজ শেষ করা হয়। সোমবার সকালে এসে দেখা যায়, তোরণটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে রাতের আঁধারে কেউ তোরণটি ভেঙেছে।
এ ব্যাপারে অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়া বলেন, জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে সালথা ও নগরকান্দায় কয়েকটি গেট নির্মাণ করেছি। এর মধ্যে সালথা বাজারে নির্মিত গেটটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতাসহ তাদের পরিবারের ছবি ছিঁড়ে মাটিতে ফেলা দেওয়া হয়েছে। এটা একটি জঘন্য ঘৃণিত কাজ। যারা এই কাজ করেছে তারা বঙ্গবন্ধুর পরিবারের শত্রু, দেশের শত্রু, স্বাধীনতা বিরোধী। আমি এই দুর্বৃত্তদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবি করছি।
সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ  (ওসি) মো. শেখ সাদিক বলেন, নির্মিত তোরণটির সঙ্গে থাকা ব্যানার ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে। ঘটনার পর একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাস্থলের আশপাশে থাকা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে। এছাড়া যেখানে জাতীয় শোকদিবসের তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে, সেসব স্থানে পুলিশের পাহারা বসানো হবে। পুলিশ সন্ধ্যা থেকে ওইসব এলাকায় টহল দেবে বলে জানান তিনি।