ঢাকা ১০:৫৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইসলামিক ফাউন্ডেশন মাদকমুক্ত একটি প্রতিষ্ঠান: ডিডি সাহাবুদ্দীন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৫৯:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২ অগাস্ট ২০২৩ ১৯০ বার পড়া হয়েছে

ফরিদপুর প্রতিনিধি।।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন এমন একটি প্রতিষ্ঠান যেখানে শত ভাগ মাদকমুক্ত দাবি করতে পারি, এখানে আশি হাজার আলেম-ওলামাগণ রয়েছেন, রয়েছেন দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষক শিক্ষিকগণ। ( জেলা প্রকাশক কে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন) যখন আপনি সচিব, এমপি, মন্ত্রীদের সাথে মিটিংয়ে বসবেন তখন ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে রাজস্ব খাতে নেওয়ার জন্য বলবেন বলে আশা করছি । সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ এবং সামাজিক সমস্যা নিরসনে ইমামদের করনীয় শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয় সে সময় ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর ফরিদপুরের উপ-পরিচালক মো. সাহাবুদ্দিন এসব কথা বলেন।

সম্প্রতি ফরিদপুর সদর উপজেলা মাল্টিপারপাস নতুন হল রুমে জেলার নয়টি উপেজলার প্রায় ৬’শ ইমাম-খতিব ও দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক দের অংশগ্রহণে দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতা ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আয়োজনে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি মো. আশিকুল হকের সভাপতিত্বে প্রশিক্ষণ কর্মশালায় বক্তব্য দেন ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক মো. কামরুল আহসান তালুকদার (পিএএ), এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপস্থিত ছিলেন ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামীম হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অর্থ ও প্রশাসন এমদাদ হোসাইন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা।

অনুষ্ঠানের সার্বিক পরিচালনায় ছিলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুরের উপ-পরিচালক মো. সাহাবুদ্দীন।

প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমির পরিচালক মো. আনিসুজ্জামান শিকদার, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দার যুগ্ন পরিচালক, দুদক এর সহকারী পরিচালক মো. মজিবুর রহমান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামিম হোসেন,সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন ঢালী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শাহ ফরিদ জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, শামসুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মুফতি কামরুজ্জামান।

এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুরের সকল কর্মকর্তা- কর্মচারীগণ, দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষকগণ প্রমুখ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ মাওলানা মো. সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ইসলামিক ফাউণন্ডেশনের আয়োজনে ফরিদপুর জেলায় সর্ব প্রথম এমন সুন্দর একটি অনুষ্ঠান উপহার দিয়েছেন যা চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুরের উপপরিচালক তার বক্তব্যে বলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন এমন একটি (সেক্টর) প্রতিষ্ঠান যেখানে শতভাগ মাদকমুক্ত আমরা দাবি করতে পারি, এখানে আশি হাজার আলেম-ওলামাগণ রয়েছেন, রয়েছেন দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষক শিক্ষিকগণ। (সেসময় জেলা প্রকাশক কে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন) আমি আপনার মাধ্যমে রাজস্বখাতে নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

জেলা প্রশাসক তার বক্তৃতায় জুম্মার দিনে নিজের মনগড়া বক্তৃতা না দিয়ে, কুরআনের আয়াত ও হাদিসের প্রকৃত ব্যাখ্য দেওয়ার জন্য ইমাম ও খতিবদের প্রতি অনুরোধ জানান।

তিনি আরো বলেন, মাদক, বাল্যবিয়ে, জঙ্গি, সন্ত্রাস রোধে সমাজের শান্তি ও সম্প্রতি রক্ষায় প্রতিটি অঞ্চলে ইমামদের ভুমিকা রয়েছে। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রনসহ বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিরষনে সকল ইমামদের কাজ করতে হবে। আমরা আগামীতে ফরিদপুরের ছয় শত ইমাম ও খতিবদের সংঙ্গে নিয়ে সমাজে অসংগতি, বিশৃঙ্খলা,কুসংস্কার দূর করে একটি আধুনিক স্মার্ট ইসলামিক ফরিদপুর গড়ে তুলবো।
ফরিদপুর জেলায় একসাথে এতো ইমাম-খতিবদের নিয়ে সুন্দর একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন করায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুর কে ধন্যবাদ জানানা তিনি।

সবশেষে দেশও জনগণের কল্যাণে মুনাজাতের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়। মুনাজাত পরিচালনা করেন ফরিদপুর জেলা (পুরাতন বাসষ্টান্ড) মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ইমাম ও খতিব হাফেজ মুফতি তাইবুর রহমান।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ইসলামিক ফাউন্ডেশন মাদকমুক্ত একটি প্রতিষ্ঠান: ডিডি সাহাবুদ্দীন

আপডেট সময় : ০৫:৫৯:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২ অগাস্ট ২০২৩

ফরিদপুর প্রতিনিধি।।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন এমন একটি প্রতিষ্ঠান যেখানে শত ভাগ মাদকমুক্ত দাবি করতে পারি, এখানে আশি হাজার আলেম-ওলামাগণ রয়েছেন, রয়েছেন দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষক শিক্ষিকগণ। ( জেলা প্রকাশক কে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন) যখন আপনি সচিব, এমপি, মন্ত্রীদের সাথে মিটিংয়ে বসবেন তখন ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে রাজস্ব খাতে নেওয়ার জন্য বলবেন বলে আশা করছি । সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ এবং সামাজিক সমস্যা নিরসনে ইমামদের করনীয় শীর্ষক এক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয় সে সময় ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর ফরিদপুরের উপ-পরিচালক মো. সাহাবুদ্দিন এসব কথা বলেন।

সম্প্রতি ফরিদপুর সদর উপজেলা মাল্টিপারপাস নতুন হল রুমে জেলার নয়টি উপেজলার প্রায় ৬’শ ইমাম-খতিব ও দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষক দের অংশগ্রহণে দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতা ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আয়োজনে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি মো. আশিকুল হকের সভাপতিত্বে প্রশিক্ষণ কর্মশালায় বক্তব্য দেন ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক মো. কামরুল আহসান তালুকদার (পিএএ), এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপস্থিত ছিলেন ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামীম হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অর্থ ও প্রশাসন এমদাদ হোসাইন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা।

অনুষ্ঠানের সার্বিক পরিচালনায় ছিলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুরের উপ-পরিচালক মো. সাহাবুদ্দীন।

প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমির পরিচালক মো. আনিসুজ্জামান শিকদার, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দার যুগ্ন পরিচালক, দুদক এর সহকারী পরিচালক মো. মজিবুর রহমান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামিম হোসেন,সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন ঢালী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শাহ ফরিদ জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, শামসুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মুফতি কামরুজ্জামান।

এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুরের সকল কর্মকর্তা- কর্মচারীগণ, দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষকগণ প্রমুখ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ মাওলানা মো. সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ইসলামিক ফাউণন্ডেশনের আয়োজনে ফরিদপুর জেলায় সর্ব প্রথম এমন সুন্দর একটি অনুষ্ঠান উপহার দিয়েছেন যা চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুরের উপপরিচালক তার বক্তব্যে বলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন এমন একটি (সেক্টর) প্রতিষ্ঠান যেখানে শতভাগ মাদকমুক্ত আমরা দাবি করতে পারি, এখানে আশি হাজার আলেম-ওলামাগণ রয়েছেন, রয়েছেন দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষক শিক্ষিকগণ। (সেসময় জেলা প্রকাশক কে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন) আমি আপনার মাধ্যমে রাজস্বখাতে নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

জেলা প্রশাসক তার বক্তৃতায় জুম্মার দিনে নিজের মনগড়া বক্তৃতা না দিয়ে, কুরআনের আয়াত ও হাদিসের প্রকৃত ব্যাখ্য দেওয়ার জন্য ইমাম ও খতিবদের প্রতি অনুরোধ জানান।

তিনি আরো বলেন, মাদক, বাল্যবিয়ে, জঙ্গি, সন্ত্রাস রোধে সমাজের শান্তি ও সম্প্রতি রক্ষায় প্রতিটি অঞ্চলে ইমামদের ভুমিকা রয়েছে। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রনসহ বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিরষনে সকল ইমামদের কাজ করতে হবে। আমরা আগামীতে ফরিদপুরের ছয় শত ইমাম ও খতিবদের সংঙ্গে নিয়ে সমাজে অসংগতি, বিশৃঙ্খলা,কুসংস্কার দূর করে একটি আধুনিক স্মার্ট ইসলামিক ফরিদপুর গড়ে তুলবো।
ফরিদপুর জেলায় একসাথে এতো ইমাম-খতিবদের নিয়ে সুন্দর একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন করায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন ফরিদপুর কে ধন্যবাদ জানানা তিনি।

সবশেষে দেশও জনগণের কল্যাণে মুনাজাতের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়। মুনাজাত পরিচালনা করেন ফরিদপুর জেলা (পুরাতন বাসষ্টান্ড) মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ইমাম ও খতিব হাফেজ মুফতি তাইবুর রহমান।