ঢাকা ১২:২৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শতভাগ ফেল করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে যা বললেন: শিক্ষামন্ত্রী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:২০:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪ ২০ বার পড়া হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক।।

 

চলতি বছরে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়েছে। এবছর গড় পাসের হার বাড়লেও কমেছে মোট জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা।পাশাপাশি একই সঙ্গে বেড়েছে শতভাগ পাশ ও শূন্য পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা।

 

রোববার(১২ মে) দুপুরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এসকল তথ্য জানান।

এর আগে সকালে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেন।

ফলাফল নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানান, চলতি বছর শতভাগ পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২ হাজার ৯৬৮টি। গত বছরে এ সংখ্যা ছিল দুই হাজার ৩৫৯টি।এক বছরের ব্যবধানে শতভাগ পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে ৬০৯টি। অন্যদিকে চলতি বছর একজন শিক্ষার্থীও পাস করেনি এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৫১টি। গত বছর সে সংখ্যা ছিল ৪৮টি।পূর্বের বছরের ব্যবধানে শতভাগ ফেল করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে ৩টি।

শূন্য পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি-না জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে শিক্ষার্থীরা।তবে বিকল্প পদ্ধতিতে কীভাবে এ সমস্যার সমাধান করা যায়, তা নিয়ে বিবেচনা করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, যেসকল স্কুলে শূন্য পাস করেছে, সেখানে শিক্ষার্থী হয়তো একজন, ‍দুজন বা দশজনের কম। এসকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যদি এমপিও ভুক্তি নেয় তবে তাদেরকে পাশের স্কুলের সঙ্গে একীভূত করা যায় কি-না সে বিষয়ে চিন্তা করা হচ্ছে।

এবারে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮৩ দশমিক ৯২ শতাংশ, বরিশালে ৮৯ দশমিক ১৩ শতাংশ, চট্টগ্রামে ৮২ দশমিক ৮০ শতাংশ, কুমিল্লায় ৭৯ দশমিক ২৩ শতাংশ, দিনাজপুরে ৭৮ দশমিক ৪০ শতাংশ, রাজশাহীতে ৮৯ দশমিক ২৬ শতাংশ, সিলেটে ৭৩ দশমিক ০৪ শতাংশ, ময়মনসিংহ ৮৪ দশমিক ৯৭ শতাংশ ও যশোরে ৯২ দশমিক ৩২ শতাংশ। এছাড়াও মাদ্রাসা বোর্ডে পাসের হার ৭৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮১.৩৮ শতাংশ।
দেশে ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের সর্বোমোট পরীক্ষার্থী ১৬ লাখ ৬ হাজার ৩৯৪ জন। এদের মধ্যে পাস করেছে ১৩ হাজার ৪৫ হাজার ৬৭৮। মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮৪৫।  মাদ্রাসা বোর্ডে দাখিল পরীক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৮৪ হাজার ৬৬৫ জন। এদের মধ্যে পাস করেছে ২ লাখ ২৬ হাজার ৭৫৪। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪ হাজার ২০৬।এছাড়া কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ২২ হাজার ৫৩৮ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৯৯ হাজার ৭২১। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৭৮ জন।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

শতভাগ ফেল করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে যা বললেন: শিক্ষামন্ত্রী

আপডেট সময় : ০৬:২০:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪

অনলাইন ডেস্ক।।

 

চলতি বছরে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়েছে। এবছর গড় পাসের হার বাড়লেও কমেছে মোট জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা।পাশাপাশি একই সঙ্গে বেড়েছে শতভাগ পাশ ও শূন্য পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা।

 

রোববার(১২ মে) দুপুরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এসকল তথ্য জানান।

এর আগে সকালে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেন।

ফলাফল নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানান, চলতি বছর শতভাগ পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২ হাজার ৯৬৮টি। গত বছরে এ সংখ্যা ছিল দুই হাজার ৩৫৯টি।এক বছরের ব্যবধানে শতভাগ পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে ৬০৯টি। অন্যদিকে চলতি বছর একজন শিক্ষার্থীও পাস করেনি এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৫১টি। গত বছর সে সংখ্যা ছিল ৪৮টি।পূর্বের বছরের ব্যবধানে শতভাগ ফেল করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে ৩টি।

শূন্য পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি-না জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে শিক্ষার্থীরা।তবে বিকল্প পদ্ধতিতে কীভাবে এ সমস্যার সমাধান করা যায়, তা নিয়ে বিবেচনা করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, যেসকল স্কুলে শূন্য পাস করেছে, সেখানে শিক্ষার্থী হয়তো একজন, ‍দুজন বা দশজনের কম। এসকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যদি এমপিও ভুক্তি নেয় তবে তাদেরকে পাশের স্কুলের সঙ্গে একীভূত করা যায় কি-না সে বিষয়ে চিন্তা করা হচ্ছে।

এবারে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮৩ দশমিক ৯২ শতাংশ, বরিশালে ৮৯ দশমিক ১৩ শতাংশ, চট্টগ্রামে ৮২ দশমিক ৮০ শতাংশ, কুমিল্লায় ৭৯ দশমিক ২৩ শতাংশ, দিনাজপুরে ৭৮ দশমিক ৪০ শতাংশ, রাজশাহীতে ৮৯ দশমিক ২৬ শতাংশ, সিলেটে ৭৩ দশমিক ০৪ শতাংশ, ময়মনসিংহ ৮৪ দশমিক ৯৭ শতাংশ ও যশোরে ৯২ দশমিক ৩২ শতাংশ। এছাড়াও মাদ্রাসা বোর্ডে পাসের হার ৭৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৮১.৩৮ শতাংশ।
দেশে ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের সর্বোমোট পরীক্ষার্থী ১৬ লাখ ৬ হাজার ৩৯৪ জন। এদের মধ্যে পাস করেছে ১৩ হাজার ৪৫ হাজার ৬৭৮। মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮৪৫।  মাদ্রাসা বোর্ডে দাখিল পরীক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৮৪ হাজার ৬৬৫ জন। এদের মধ্যে পাস করেছে ২ লাখ ২৬ হাজার ৭৫৪। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪ হাজার ২০৬।এছাড়া কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ২২ হাজার ৫৩৮ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৯৯ হাজার ৭২১। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৭৮ জন।