ঢাকা ১২:৩২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে ঝামেলাবিহীন বিআরটিএ’র সিএনজি স্ক্রাপকরণ সম্পন্ন, দ্রুত রিপ্লেসের দাবী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৫৬:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩ ৭৯ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান।।

 

 

চট্টগ্রামে জেলা শহরে নিবন্ধিত ১৩ হাজার ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা স্ক্র্যাপ করে প্রতিস্থাপন করা সম্পন্ন হয়েছে,। স্ক্র্যাপকরণ করা ১৫১টি
সিএনজি চালিত অটোরিক্সা দ্রুততম সময়ের মধ্যে রিপ্লেস দেয়ার জোড় দাবি জানিয়েছেন সিএনজি চালিত অটোরিকশা মালিকগন।

বিআরটিএ সূত্র গণমাধ্যমকে জানিয়েছে,সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী গত ২৩ মে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। এতে বলা হয়েছে ২০০১, ২০০২, ২০০৩, ২০০৪ ও ২০০৫ সালে তৈরিকৃত সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করা হবে। সিএনজি চালিত অটোরিকশা মালিকরা এসকল মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি স্ক্র্যাপকরণের জন্য বিআরটিএ’ কার্যালয়ে তালিকাভুক্ত করেন।

গত ৪/৫ বছর যাবৎ এসব সিএনজি অটোরিক্সাগুলোর মালিকরা চিন্তিত ছিলেন। এসব সিএনজি স্ক্র্যাপকরণের কারণে এখন তারা রিপ্লেসমেন্ট নাম্বর দিয়ে নতুন সিএনজি অটোরিকশা নিতে পারবেন এমন আশ্বসের ফলে অটোরিকশা মালিকদের পরিবারে আশার আলো সহ নতুন আয়ের পথ উম্মুক্ত হয়েছে।

সূত্রে আরও জানা যায়, ২০০১ সাল থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ১৩ হাজার করে মোট ২৬ হাজার সিএনজি অটোরিকশা নিবন্ধন দিয়েছিল বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। এসব সিএনজি অটোরিকশা নিবন্ধনের সময় মেয়াদ বা আয়ুষ্কাল নির্ধারণ করা হয়েছিল ৯ বছর, পরে মালিক ও চালকদের দাবির মুখে তিন দফায় অটোরিকশাগুলোর মেয়াদ বাড়িয়ে ১৫ বছর করা হয়। যে কারণে পরিবেশগত ক্ষতির প্রভাবমুক্ত হতে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে ইতোমধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রাম এ নিবন্ধিত ১৩ হাজার অটোরিকশার স্ক্র্যাপ করে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করতে পেরে খুশি হয়েছেন ফয়সল মাহমুদ।

তিনি তার প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্ত করে বলেন,অনেকে আশঙ্কা করেছিলেন এসব সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরন করতে ঝামেলায় পড়তে হতে পারে। কিন্তু কোন ঝামেলা ছাড়াই সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করা হয়, তবে দালালের ব্যাপারে বিআরটিএ’র কর্মকর্তারা কঠোর ভূমিকা নিয়ে এ দায়িত্ব পালন করেছেন। রিপ্লেস সিএনজি দেওয়ার দাবি জানিয়ে সাইফুল ইসলাম শুভ বলেন, দালাল ছাড়াই আমার দুটি সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ হয়েছে, এখন আমাদের দাবি ঐসব স্ক্র্যাপ সিএনজি যেন দ্রুত রিপ্লেসমেন্টে দেওয়া হয় যাতে আমাদের আয়ের পথ নতুন করে উম্মুক্ত হয়।

বিআরটিএ চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক জনাব শফিউজ্জামান ভূঁইয়া সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সরকারী দিকনির্দেশনা অনুযায়ী সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করা হয়েছে। দালালমুক্ত ভাবে সিএনজি মালিকদের সেবা দিতে পেরে আমরা ও আনন্দিত এমনই বলছিলেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

চট্টগ্রামে ঝামেলাবিহীন বিআরটিএ’র সিএনজি স্ক্রাপকরণ সম্পন্ন, দ্রুত রিপ্লেসের দাবী

আপডেট সময় : ০৫:৫৬:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩

চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান।।

 

 

চট্টগ্রামে জেলা শহরে নিবন্ধিত ১৩ হাজার ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা স্ক্র্যাপ করে প্রতিস্থাপন করা সম্পন্ন হয়েছে,। স্ক্র্যাপকরণ করা ১৫১টি
সিএনজি চালিত অটোরিক্সা দ্রুততম সময়ের মধ্যে রিপ্লেস দেয়ার জোড় দাবি জানিয়েছেন সিএনজি চালিত অটোরিকশা মালিকগন।

বিআরটিএ সূত্র গণমাধ্যমকে জানিয়েছে,সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী গত ২৩ মে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। এতে বলা হয়েছে ২০০১, ২০০২, ২০০৩, ২০০৪ ও ২০০৫ সালে তৈরিকৃত সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করা হবে। সিএনজি চালিত অটোরিকশা মালিকরা এসকল মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি স্ক্র্যাপকরণের জন্য বিআরটিএ’ কার্যালয়ে তালিকাভুক্ত করেন।

গত ৪/৫ বছর যাবৎ এসব সিএনজি অটোরিক্সাগুলোর মালিকরা চিন্তিত ছিলেন। এসব সিএনজি স্ক্র্যাপকরণের কারণে এখন তারা রিপ্লেসমেন্ট নাম্বর দিয়ে নতুন সিএনজি অটোরিকশা নিতে পারবেন এমন আশ্বসের ফলে অটোরিকশা মালিকদের পরিবারে আশার আলো সহ নতুন আয়ের পথ উম্মুক্ত হয়েছে।

সূত্রে আরও জানা যায়, ২০০১ সাল থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ১৩ হাজার করে মোট ২৬ হাজার সিএনজি অটোরিকশা নিবন্ধন দিয়েছিল বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। এসব সিএনজি অটোরিকশা নিবন্ধনের সময় মেয়াদ বা আয়ুষ্কাল নির্ধারণ করা হয়েছিল ৯ বছর, পরে মালিক ও চালকদের দাবির মুখে তিন দফায় অটোরিকশাগুলোর মেয়াদ বাড়িয়ে ১৫ বছর করা হয়। যে কারণে পরিবেশগত ক্ষতির প্রভাবমুক্ত হতে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে ইতোমধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রাম এ নিবন্ধিত ১৩ হাজার অটোরিকশার স্ক্র্যাপ করে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করতে পেরে খুশি হয়েছেন ফয়সল মাহমুদ।

তিনি তার প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্ত করে বলেন,অনেকে আশঙ্কা করেছিলেন এসব সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরন করতে ঝামেলায় পড়তে হতে পারে। কিন্তু কোন ঝামেলা ছাড়াই সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করা হয়, তবে দালালের ব্যাপারে বিআরটিএ’র কর্মকর্তারা কঠোর ভূমিকা নিয়ে এ দায়িত্ব পালন করেছেন। রিপ্লেস সিএনজি দেওয়ার দাবি জানিয়ে সাইফুল ইসলাম শুভ বলেন, দালাল ছাড়াই আমার দুটি সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ হয়েছে, এখন আমাদের দাবি ঐসব স্ক্র্যাপ সিএনজি যেন দ্রুত রিপ্লেসমেন্টে দেওয়া হয় যাতে আমাদের আয়ের পথ নতুন করে উম্মুক্ত হয়।

বিআরটিএ চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক জনাব শফিউজ্জামান ভূঁইয়া সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সরকারী দিকনির্দেশনা অনুযায়ী সিএনজি অটোরিক্সা স্ক্র্যাপকরণ করা হয়েছে। দালালমুক্ত ভাবে সিএনজি মালিকদের সেবা দিতে পেরে আমরা ও আনন্দিত এমনই বলছিলেন তিনি।